হাম

0
6826

সূচনা:

A- হামের উপস্থাপনা:

হাম একটি তীব্র সংক্রামক রোগ যা হামের ভাইরাস দ্বারা সৃষ্ট হয়। এটি টিকাবিহীন বা কম টিকাপ্রাপ্ত জনগোষ্ঠীর মধ্যে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। হামের লক্ষণগুলি সাধারণত ভাইরাসের সংস্পর্শে আসার প্রায় 10 থেকে 14 দিন পরে দেখা যায় এবং এর মধ্যে জ্বর, কাশি, হাঁচি, লাল, জ্বালা করা চোখ এবং ফুসকুড়ি অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। যদিও হাম একটি শৈশব রোগ হিসাবে বিবেচিত হয়, তবে প্রাপ্তবয়স্করাও আক্রান্ত হতে পারে। এই রোগটি নিউমোনিয়া, এনসেফালাইটিস এবং চোখের প্রদাহের মতো গুরুতর জটিলতাও সৃষ্টি করতে পারে। এর উচ্চ সংক্রামকতার কারণে, হাম একটি গুরুতর অসুস্থতা হিসাবে বিবেচিত হয় এবং অবিলম্বে চিকিৎসার প্রয়োজন হয়।

খ- হাম কেন জানা জরুরী?

হাম এবং এর লক্ষণগুলি সম্পর্কে জানা অপরিহার্য কারণ এর তীব্রতা এবং উচ্চ সংক্রামকতার কারণে। টিকাবিহীন বা কম টিকা দেওয়া জনসংখ্যার মধ্যে হাম খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে, যা বড় ধরনের প্রাদুর্ভাবের কারণ হতে পারে। হাম থেকে জটিলতা গুরুতর হতে পারে, বিশেষ করে শিশু এবং দুর্বল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সম্পন্ন ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে। সম্ভাব্য জটিলতার মধ্যে রয়েছে নিউমোনিয়া, এনসেফালাইটিস এবং চোখের প্রদাহ, যা স্থায়ী দৃষ্টিশক্তি হারাতে পারে। এছাড়াও, হাম মারাত্মক হতে পারে, বিশেষ করে শিশু এবং ছোট শিশুদের ক্ষেত্রে। তাই টিকা নেওয়া সহ হাম প্রতিরোধে পদক্ষেপ নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ, সংক্রামিত ব্যক্তিদের সংস্পর্শ এড়ানো এবং নিয়মিত আপনার হাত ধোয়া। হামের লক্ষণ ও ঝুঁকি বোঝার মাধ্যমে আমরা নিজেদেরকে, আমাদের পরিবারকে এবং আমাদের সম্প্রদায়কে এই প্রাণঘাতী রোগ থেকে রক্ষা করতে পারি।

II- হামের কারণ:

A- হামের ভাইরাস:

হামের ভাইরাস এই সংক্রামক রোগের জন্য দায়ী ভাইরাস। এটি Paramyxoviridae পরিবারের অন্তর্গত এবং অত্যন্ত সংক্রামক। হামের ভাইরাস প্রাথমিকভাবে বায়ুবাহিত ফোঁটার মাধ্যমে ছড়ায়, যা সংক্রামিত মানুষের কাশি বা হাঁচির সময় নির্গত হয়। ভাইরাস বাতাসে এবং দূষিত পৃষ্ঠে কয়েক ঘন্টা বেঁচে থাকতে পারে, যা রোগের সংক্রমণকে খুব সহজ করে তোলে। একবার একজন ব্যক্তি হামের ভাইরাসে সংক্রমিত হলে, উপসর্গ দেখা দেওয়ার কয়েকদিন আগে এটি সংক্রামক হতে পারে। ভাইরাসটি টিকাবিহীন বা কম টিকাপ্রাপ্ত জনগোষ্ঠীতেও দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে, যা বড় ধরনের মহামারী হতে পারে। হামের ভাইরাস কিভাবে ছড়ায় তা বোঝার মাধ্যমে,

B- সংক্রমণের পদ্ধতি:

হাম একটি অত্যন্ত সংক্রামক রোগ যা মূলত বায়ুবাহিত ফোঁটা দ্বারা ছড়ায়। যখন একজন সংক্রামিত ব্যক্তি কাশি বা হাঁচি দেয়, তখন তারা হামের ভাইরাস ধারণ করে এমন ফোঁটা নির্গত করে। এই ফোঁটাগুলি কয়েক ঘন্টার জন্য বায়ুবাহিত থাকতে পারে এবং অন্য লোকেরা শ্বাস নিতে পারে, যারা তখন সংক্রামিত হতে পারে। হামের ভাইরাসটি সংক্রামিত ব্যক্তির অনুনাসিক বা মৌখিক স্রাবের সাথে সরাসরি যোগাযোগের মাধ্যমে বা এই নিঃসরণ দ্বারা দূষিত পৃষ্ঠের সংস্পর্শে থেকেও ছড়াতে পারে। একজন ব্যক্তি লক্ষণ প্রকাশের বেশ কয়েক দিন আগে এবং ফুসকুড়ি প্রদর্শিত হওয়ার চার দিন পর্যন্ত সংক্রামক হতে পারে। এছাড়াও, সংক্রামিত ব্যক্তির চোখের সংস্পর্শের মাধ্যমে হাম সংক্রমণ হতে পারে, যা রোগ দ্বারা সৃষ্ট প্রদাহের কারণে লাল এবং বিরক্ত হতে পারে। হাম কীভাবে ছড়ায় তা বোঝার মাধ্যমে আমরা রোগ প্রতিরোধ করতে এবং এর বিস্তার রোধ করতে পদক্ষেপ নিতে পারি।

সি- ঝুঁকির কারণ:

হামের ঝুঁকির কারণগুলির মধ্যে প্রধানত অ-টিকা বা কম-টিকা অন্তর্ভুক্ত। যারা হামের টিকা পাননি বা যাদের পুরোপুরি টিকা দেওয়া হয়নি তাদের এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। এছাড়াও, পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুদের মধ্যে হাম বেশি দেখা যায়, যাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা প্রাপ্তবয়স্কদের তুলনায় কম উন্নত। যাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল, যেমন এইচআইভি/এইডস আক্রান্ত ব্যক্তি বা যারা ইমিউনোসপ্রেসিভ থেরাপি গ্রহণ করছেন, তাদেরও হাম হওয়ার এবং গুরুতর জটিলতা হওয়ার ঝুঁকি বেশি। পরিশেষে, যেসব দেশে হাম রোগের প্রাদুর্ভাব রয়েছে সেখানে ভ্রমণকারীদেরও এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে। হামের সাথে সম্পর্কিত ঝুঁকির কারণগুলি বোঝার মাধ্যমে, আমরা রোগ প্রতিরোধ করতে এবং এটি ছড়িয়ে পড়ার ঝুঁকি কমাতে পদক্ষেপ নিতে পারি। হাম প্রতিরোধ এবং গুরুতর জটিলতার ঝুঁকি কমাতে টিকাদান হল অন্যতম কার্যকরী পদক্ষেপ।

III- হামের লক্ষণ:

A- সাধারণ লক্ষণ:

হামের সাধারণ লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে জ্বর, ফুসকুড়ি, কাশি, সর্দি, চোখ লাল, জ্বালা এবং সাধারণত অসুস্থ বোধ করা। জ্বর হামের প্রথম লক্ষণগুলির মধ্যে একটি এবং এটি বেশ কয়েক দিন স্থায়ী হতে পারে। ফুসকুড়ি সাধারণত জ্বর শুরু হওয়ার তিন থেকে পাঁচ দিন পরে দেখা যায় এবং প্রায়শই মাথা এবং ঘাড়ে শুরু হয় এবং তারপরে শরীরে ছড়িয়ে পড়ে। কাশি এবং সর্দিও হামের লক্ষণ হতে পারে, যদিও এই উপসর্গগুলিকে প্রায়ই সর্দি বা ফ্লু বলে ভুল করা হয়। লাল, জ্বালাপোড়া চোখও হামের একটি উপসর্গ হতে পারে, রোগের কারণে প্রদাহের কারণে। হাম ক্ষুধা, ক্লান্তি এবং সাধারণ দুর্বলতার কারণও হতে পারে।

বি- সম্ভাব্য জটিলতা:

যদিও হাম সাধারণত একটি হালকা অসুস্থতা, এটি সম্ভাব্য গুরুতর জটিলতার দিকে নিয়ে যেতে পারে, বিশেষ করে দুর্বল প্রতিরোধ ক্ষমতা সম্পন্ন লোকেদের ক্ষেত্রে। হামের সাধারণ জটিলতার মধ্যে রয়েছে নিউমোনিয়া, ওটিটিস মিডিয়া, অন্ধত্ব, মারাত্মক ডায়রিয়া এবং ডিহাইড্রেশন। বিরল ক্ষেত্রে, হাম এনসেফালাইটিস হতে পারে, মস্তিষ্কের একটি প্রদাহ যা খিঁচুনি, পক্ষাঘাত বা মানসিক প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে পারে। হাম অপুষ্টি বা এইচআইভি/এইডসের মতো অন্তর্নিহিত অবস্থারও অবনতি ঘটাতে পারে। হাম থেকে গুরুতর জটিলতাগুলি পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশু, 20 বছরের বেশি প্রাপ্তবয়স্ক এবং দুর্বল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সম্পন্ন ব্যক্তিদের মধ্যে বেশি দেখা যায়। হাম প্রতিরোধ এবং গুরুতর জটিলতার ঝুঁকি কমাতে টিকাদান হল অন্যতম কার্যকরী পদক্ষেপ। হামের সম্ভাব্য জটিলতাগুলি বোঝার মাধ্যমে, আমরা রোগটি প্রাথমিকভাবে নির্ণয় ও চিকিত্সার জন্য পদক্ষেপ নিতে পারি, পাশাপাশি অন্যদের মধ্যে এর বিস্তার রোধ করতে পারি।

গ- শিশু এবং প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে হামের পার্থক্য:

যদিও হাম সাধারণত শিশুদের প্রভাবিত করে, তবে এটি প্রাপ্তবয়স্কদেরও প্রভাবিত করতে পারে। শিশু এবং প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে হামের লক্ষণগুলি একই রকম, তবে অসুস্থতার তীব্রতা এবং সময়কালের মধ্যে পার্থক্য থাকতে পারে। শিশুদের ক্ষেত্রে, হাম সাধারণত হালকা হয় এবং এক থেকে দুই সপ্তাহের মধ্যে নিজে থেকেই সমাধান হয়ে যায়, যদিও কিছু শিশুদের ক্ষেত্রে গুরুতর জটিলতা দেখা দিতে পারে। প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে, হাম আরও গুরুতর হতে পারে এবং দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে, বিশেষ করে দুর্বল প্রতিরোধ ব্যবস্থার লোকেদের ক্ষেত্রে। হামে আক্রান্ত প্রাপ্তবয়স্কদেরও নিউমোনিয়া বা এনসেফালাইটিসের মতো গুরুতর জটিলতা হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। এছাড়াও, হাম আক্রান্ত প্রাপ্তবয়স্কদের অন্যদের মধ্যে রোগ ছড়ানোর সম্ভাবনা বেশি হতে পারে। যেহেতু তারা শিশুদের চেয়ে বেশি সামাজিকভাবে সক্রিয় থাকে। শিশুদের এবং প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে হামের পার্থক্য বোঝার মাধ্যমে, আমরা অসুস্থতা প্রতিরোধে পদক্ষেপ নিতে পারি এবং যারা সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ তাদের মধ্যে গুরুতর জটিলতার ঝুঁকি কমাতে পারি।

IV- হামের রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসা:

উঃ- হাম কিভাবে নির্ণয় করা যায়ঃ

হাম রোগ নির্ণয় সাধারণত রোগের লক্ষণ এবং রোগীর টিকা দেওয়ার ইতিহাসের উপর ভিত্তি করে করা হয়। হামের লক্ষণগুলি অন্যান্য অসুস্থতার সাথে সাদৃশ্যপূর্ণ হতে পারে, তাই অসুস্থতার অন্যান্য সম্ভাব্য কারণগুলিকে বাতিল করা গুরুত্বপূর্ণ, যেমন ফ্লু। হামের ভাইরাসের বিরুদ্ধে অ্যান্টিবডির উপস্থিতি সনাক্ত করতে ডাক্তার রক্ত ​​পরীক্ষাও করতে পারেন। যাইহোক, এই পরীক্ষা সবসময় নির্ভরযোগ্য নয় এবং মিথ্যা নেতিবাচক ফলাফল দিতে পারে। কিছু ক্ষেত্রে, ডাক্তার হামের ভাইরাসের উপস্থিতি পরীক্ষা করার জন্য একটি টিস্যুর নমুনা নিতে পারেন। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব হাম নির্ণয় করা গুরুত্বপূর্ণ কারণ এটি আপনাকে গুরুতর জটিলতার ঝুঁকি কমাতে এবং রোগটিকে অন্যদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়া রোধ করতে পদক্ষেপ নিতে দেয়।

খ- হামের চিকিৎসা:

হামের কোনো নির্দিষ্ট চিকিৎসা নেই, তবে উপসর্গ উপশম করতে এবং গুরুতর জটিলতা প্রতিরোধে পদক্ষেপ নেওয়া যেতে পারে। অ্যান্টিপাইরেটিক ওষুধ, যেমন অ্যাসিটামিনোফেন, জ্বর কমাতে ব্যবহার করা যেতে পারে। হামে আক্রান্ত ব্যক্তিদের ডিহাইড্রেশন এড়াতে প্রচুর পরিমাণে তরল পান করা উচিত। রোগীরা ভিটামিন এ সম্পূরকও পেতে পারে, যা শিশুদের মধ্যে জটিলতার ঝুঁকি কমাতে দেখানো হয়েছে। হামের রোগীদের আলাদা করা উচিত যাতে রোগটি অন্যদের মধ্যে ছড়াতে না পারে, বিশেষ করে যাদের টিকা দেওয়া হয়নি। এছাড়াও, হামে আক্রান্ত ব্যক্তিদের দুর্বল ইমিউন সিস্টেমের সাথে যোগাযোগ এড়ানো উচিত, যেমন ক্যান্সার রোগী বা অটোইমিউন রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিরা। যদিও হাম সাধারণত হালকা হয় এবং এক থেকে দুই সপ্তাহের মধ্যে নিজেই সমাধান হয়ে যায়, তবে গুরুতর জটিলতা এড়াতে আপনার যদি রোগের লক্ষণ থাকে তবে একজন স্বাস্থ্যসেবা পেশাদারের সাথে দেখা করা গুরুত্বপূর্ণ।

সি- হামের উপসর্গ উপশমের ওষুধ:

হামের কোনো সুনির্দিষ্ট চিকিৎসা নেই, তবে রোগের উপসর্গ উপশমের জন্য ওষুধ ব্যবহার করা যেতে পারে। অ্যান্টিপাইরেটিক ওষুধ, যেমন অ্যাসিটামিনোফেন, জ্বর কমাতে ব্যবহার করা যেতে পারে, যখন কাশির ওষুধগুলি কাশি উপশম করতে সাহায্য করতে পারে। অ্যান্টিহিস্টামিন ওষুধগুলি হামের ফুসকুড়ির সাথে সম্পর্কিত চুলকানি কমাতে সাহায্য করতে পারে। যাইহোক, এটি লক্ষ করা গুরুত্বপূর্ণ যে কিছু নির্দিষ্ট ওষুধ, যেমন ননস্টেরয়েডাল অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি ড্রাগস (NSAIDs), গুরুতর জটিলতার ঝুঁকির কারণে হামে আক্রান্ত রোগীদের এড়ানো উচিত। হামে আক্রান্ত রোগীদের নিউমোনিয়া বা এনসেফালাইটিসের মতো জটিলতার লক্ষণগুলির জন্য সাবধানে পর্যবেক্ষণ করা উচিত এবং সেই অনুযায়ী চিকিত্সা করা উচিত।

V- হাম প্রতিরোধ:

উঃ- হামের বিরুদ্ধে টিকা প্রদানঃ

হাম প্রতিরোধের সবচেয়ে কার্যকর উপায় টিকা। হামের টিকা একটি ইনজেকশন হিসাবে দেওয়া হয় এবং 12 মাস বয়সী শিশুদের জন্য সুপারিশ করা হয়। 4-6 বছর বয়সের কাছাকাছি একটি বুস্টার সুপারিশ করা হয়। যাদের টিকা দেওয়া হয়নি বা যাদের হাম হয়নি তাদের জন্যও টিকা দেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। টিকাদান বিশেষ করে এমন লোকেদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ যেখানে হাম এখনও সাধারণ। হামের টিকাকরণ নিরাপদ এবং কার্যকর, যার সুরক্ষা হার প্রায় 97%। ভ্যাকসিনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াগুলি সাধারণত ছোট হয়, যেমন জ্বর বা ইনজেকশন সাইটে লালভাব। এটি লক্ষ করা গুরুত্বপূর্ণ যে হামের বিরুদ্ধে টিকা শুধুমাত্র টিকাপ্রাপ্ত ব্যক্তিকে রক্ষা করে না,

খ- হামের বিস্তার রোধে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা:

হাম অত্যন্ত সংক্রামক এবং সহজে ব্যক্তি থেকে ব্যক্তিতে ছড়াতে পারে। রোগের বিস্তার রোধে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা জরুরি। হাম প্রতিরোধের সর্বোত্তম উপায় হল টিকা নেওয়া। টিকা দেওয়ার পাশাপাশি, সাবান এবং জল দিয়ে ঘন ঘন আপনার হাত ধোয়া গুরুত্বপূর্ণ, বিশেষ করে অসুস্থ ব্যক্তিদের সাথে বা সর্বজনীন স্থানে যোগাযোগের পরে। রোগ ছড়ানো এড়াতে অসুস্থ ব্যক্তিদের থেকে দূরে থাকা বা আপনি অসুস্থ হলে বাড়িতে থাকাও গুরুত্বপূর্ণ। হাম আক্রান্ত ব্যক্তিদের এই রোগের বিস্তার রোধে কোয়ারেন্টাইন করা উচিত। পৃষ্ঠ এবং বস্তু নিয়মিত পরিষ্কার এবং জীবাণুমুক্ত করা আবশ্যক, বিশেষ করে পাবলিক প্লেস যেমন স্কুল এবং হাসপাতালে। এই সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হামের বিস্তার রোধ করতে এবং সম্প্রদায়ের স্বাস্থ্য রক্ষা করতে সাহায্য করতে পারে।

VI- উপসংহার:

A- মূল পয়েন্টের সারসংক্ষেপ:

হাম একটি অত্যন্ত সংক্রামক ভাইরাল রোগ যা গুরুতর জটিলতার কারণ হতে পারে, বিশেষ করে শিশু, ছোট বাচ্চা এবং ইমিউনোকম্প্রোমাইজড প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে। হামের সাধারণ লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে জ্বর, কাশি, ফুসকুড়ি এবং চোখ লাল। সংক্রামিত ব্যক্তির কাছ থেকে শ্বাস প্রশ্বাসের ফোঁটাগুলির সংস্পর্শে এই রোগটি ছড়িয়ে পড়ে। হাম প্রতিরোধের সর্বোত্তম উপায় হল টিকা নেওয়া। রোগের বিস্তার রোধে সতর্কতামূলক ব্যবস্থার মধ্যে রয়েছে টিকাদান, ঘন ঘন হাত ধোয়া, অসুস্থ ব্যক্তিদের এড়িয়ে চলা, হামে আক্রান্ত ব্যক্তিদের কোয়ারেন্টাইন এবং পৃষ্ঠ ও বস্তুর নিয়মিত জীবাণুমুক্তকরণ। হামের চিকিত্সা প্রধানত লক্ষণীয় এবং জ্বর এবং ব্যথার মতো উপসর্গগুলিকে উপশম করা লক্ষ্য করে। এটি লক্ষ করা গুরুত্বপূর্ণ যে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা অনুসরণ করা হলে হাম প্রতিরোধ করা যেতে পারে এবং রোগের বিস্তার রোধ করার জন্য টিকা একটি অপরিহার্য ব্যবস্থা।

খ- হামের বিরুদ্ধে টিকা দেওয়ার গুরুত্ব:

এই অত্যন্ত সংক্রামক ভাইরাল রোগের বিস্তার রোধ করার জন্য হামের বিরুদ্ধে টিকা একটি গুরুত্বপূর্ণ ব্যবস্থা। টিকা 95% পর্যন্ত হামের ক্ষেত্রে প্রতিরোধ করতে পারে। টিকাদানের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ন্যূনতম এবং এটি যে সুবিধা দেয় তার থেকে অনেক বেশি। প্রকৃতপক্ষে, ভ্যাকসিনেশন শুধুমাত্র টিকাপ্রাপ্ত ব্যক্তিকেই রক্ষা করে না, বরং সম্প্রদায়ের অনাকাঙ্ক্ষিত ব্যক্তিদেরও, পশুর অনাক্রম্যতা তৈরি করে। 12 মাস বয়সের আগে টিকা দেওয়া যায় না এমন শিশু এবং ছোট বাচ্চাদের রক্ষা করার জন্য এটি বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ। যেসব লোকে হাম স্থানীয় এলাকায় ভ্রমণ করেন তাদের জন্যও টিকা গুরুত্বপূর্ণ, কারণ এটি রোগের বিরুদ্ধে সুরক্ষা প্রদান করে। দিনের শেষে,

গ- হাম শিক্ষার গুরুত্ব:

এই ভাইরাল রোগের বিস্তার রোধে হাম শিক্ষা একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এটি সংক্রমণের পদ্ধতি, লক্ষণ এবং রোগের সম্ভাব্য জটিলতাগুলির পাশাপাশি প্রতিরোধ ও চিকিত্সার উপায় সম্পর্কে সচেতনতা বাড়ায়। তথ্য ও সচেতনতামূলক প্রচারণা হামের বিস্তার কমাতে সাহায্য করতে পারে মানুষকে টিকা নিতে উৎসাহিত করে, স্বাস্থ্যবিধির গুরুত্ব সম্পর্কে শিক্ষা দেয় এবং রোগের বিস্তার রোধে করণীয় সম্পর্কে তথ্য প্রদান করে। শিক্ষা বিশেষ করে পিতামাতা এবং শিশুদের যত্নশীলদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ, যাদের হামের লক্ষণগুলি চিনতে সক্ষম হতে হবে এবং উপযুক্ত চিকিত্সা পাওয়ার জন্য দ্রুত পদক্ষেপ নিতে হবে। দিনের শেষে,

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.